দইয়ের সঙ্গে যেসব খাবার খেলে বিষক্রিয়া হতে পারে

বার্তা ডেস্কঃ এই গরমে দই স্বাস্থ্যের জন্য উপাদেয়। পুষ্টিবিজ্ঞানীরা এই সময় বেশি করে দই খাওয়ার পরামর্শ দেন। হজম শক্তি বাড়ায় দই। পেটের জন্যও ভালো। কিন্তু, দইয়ের স্বাদের তারতম্য আনতে অনেক সময়ই আমরা দইয়ের সঙ্গে বেশ কিছু জিনিস মিশিয়ে খেতে পছন্দ করি। কিন্তু কোন জিনিস খাবেন আর কোনটা নয়। তা জানা অতি প্রয়োজনীয়। একে অপরের সঙ্গে মিশে কোন বিপদ ডেকে আনতে পারে। হতে পারে বিষক্রিয়া। জেনে নিন কোন কোন জিনিস দুইয়ের সঙ্গে মিশিয়ে খাবেন না।

রায়তা:

রায়তা বানানোর সময় দইয়ের সঙ্গে ভুলেও পেঁয়াজ দেবেন না। অন্যদিকে দই ফুচকা খাওয়া বা বিভিন্ন রান্নায় আমরা দইয়ের সঙ্গে পেঁয়াজের ঘন্ট তৈরি করে থাকি। কিন্তু এই মিশ্রণে অ্যালার্জি, ত্বকের সমস্যা, অ্যাস্থমার মতো মারাত্মক অসুখ হতে পারে। মাছ

মাছ:

মাছের সঙ্গে দই খাওয়ার প্রবণতা বাঙালিদের মধ্যে রয়েছে। স্বাদে ভরা বাঙালি গরম ভাতে মাছের কালিয়া, কোফতা, দই চিংড়ি বা ইলিশ খেতে খুবই পছন্দ করেন। আপনিও কি সেই দলে? বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, দই ও মাছ- উভয়েই রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে প্রোটিন। তাই দুটি একসঙ্গে খাওয়ার ফলে হজমতন্ত্রে সমস্যা, পেটে ব্যথার সমস্যা হতে পারে।

দই দুধ:

দই খান, নয়ত আলাদা করে দুধ পান করুন। কিন্তু কখনই দুটি একসঙ্গে নয়। কারণ, দুটি প্রাণী থেকে সংগৃহীত প্রোটিন একসঙ্গে খাওয়ার ফলে ডায়েরিয়া, অ্যাসিডিটি, বমিভাব, পেট ফুলে ওঠা ও গ্যাসের প্রবণতা বাড়তে থাকে। গ্যাসের থেকে বুক পেট পিঠে ব্যথা হতে পারে।

ডাল দই:

ডাল ও দই কখনই একসঙ্গে খাবেন না। দুটোই প্রোটিন। আপনার হজমতন্ত্রকে ব্যাহত করতে সময় নেবে মাত্র কয়েক মিনিট। বদহজম, ডায়েরিয়া, পেট ফেঁপে থাকবে বহুক্ষণ।

ভাজাভুজি:

ভাজাভুজির সঙ্গে দই, একেবারেই নয়। অনেকেই পরোটার সঙ্গে দই আঁচার খতে পছন্দ করেন। কিন্তু জানেন কি তৈলাক্ত খাবারের সঙ্গে দই খেলে হজমশক্তি কমে যায়! পাশাপাশি শরীরে অদ্ভুতভাবে ক্লান্তি ঘিরে ধরবে। বমি বমি ভাব আসতে পারে।

Share This Post

Post Comment