ভারতের রপ্তানি বন্ধের সুযোগে সিন্ডিকেটের পেঁয়াজ কারসাজি

বার্তা ডেস্কঃ ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করায় দেশে পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা ছড়িয়ে পড়েছে। রপ্তানি বন্ধের পর মাত্র এক দিনের ব্যবধানে মানভেদে প্রতি কেজি পেঁয়াজের দাম ৪০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। বর্তমানে রাজধানীর খুচরা বাজারে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ১১০ থেকে ১২০ টাকা এবং আগের আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বলেছে, ভারত রপ্তানি বন্ধের এক দিনের মধ্যেই পেঁয়াজের দাম এত বাড়বে কেন? কারণ দেশে উত্পাদিত পেঁয়াজের ভালো মজুত রয়েছে। এটা সিন্ডিকেটের কারসাজি ছাড়া আর কিছুই নয়। এদিকে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করার জন্য ভারতের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ।

অতিবৃষ্টি ও বন্যার কারণে পেঁয়াজের উত্পাদন ব্যাহত হওয়ায় সরবরাহ সংকটের অজুহাতে গত সোমবার থেকে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত। গত বছরের ৩০ সেপ্টম্বরও পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করা হয়েছিল। সে সময় পেঁয়াজের কেজি ৩০০ টাকা ছাড়িয়ে যায়। চলতি বছরের মার্চে সেই নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছিল।

এদিকে রপ্তানি বন্ধের পর গতকাল মঙ্গলবার দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর, বেনাপোল স্থলবন্দর, সাতক্ষীরার ভোমরা স্থলবন্দর ও দর্শনা আন্তর্জাতিক রেলবন্দর দিয়ে কোনো পেঁয়াজ দেশে ঢোকেনি। এমনকি আগের এলসি করা কোনো পেঁয়াজও আসেনি। ফলে দেশে প্রবেশের অপেক্ষায় ভারতে আটকা পড়েছে পেঁয়াজবোঝাই কয়েক শ ট্রাক।

হিলি স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশীদ গতকাল ইত্তেফাককে বলেন, শুধু হিলি স্থলবন্দরের আমদানিকারকেরা ১০ থেকে ১৫ হাজার টনের মতো পেঁয়াজ আমদানির জন্য ভারতে এলসি করেছেন, যার বিপরীতে ২৫০ থেকে ৩০০ ভারতীয় ট্রাক পেঁয়াজ নিয়ে সে দেশে আটকা পড়েছে।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজন বলেন, ভারতীয় বৈদেশিক বাণিজ্যের মহাপরিচালক অমিত ইয়াদপ স্বাক্ষরিত এক পত্রের মাধ্যমে গত সোমবার সন্ধায় বেনাপোল কাস্টমস, বন্দর ও সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনকে জানানো হয়েছে যে ভারতে পেঁয়াজের বাজার স্থিতিশীল রাখতে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করা হয়েছে। তবে এলসি মূল্য ৭৫০ মার্কিন ডলারে পেঁয়াজ রপ্তানি করা যাবে। ৩০০ ডলারে এলসি করা যেসব পেঁয়াজের গাড়ি পেট্রাপোল বন্দরে আটকে আছে, শুধু সেগুলো ৭৫০ ডলার করা হলে আটকে থাকা পেঁয়াজের গাড়িগুলো বাংলাদেশে রপ্তানি করা হবে।

এক লাফে পেঁয়াজের দাম প্রায় দ্বিগুণঃ 

ভারতের পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের খবরে দেশের বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়ে প্রায় দ্বিগুণ হয়ে গেছে। গত সোমবার সকালেও দেশি পেঁয়াজের কেজি ৬০ থেকে ৬৫ টাকায় বিক্রি হলেও গতকাল তা ১০০ টাকা ছাড়িয়ে গেছে। আর পাড়া-মহল্লার দোকানগুলোতে তা ১২০ টাকা কেজি পর্যন্ত বিক্রি হতে দেখা গেছে। আগের আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজও কেজিতে ৩০ থেকে ৪০ টাকা বেড়ে ৭০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দাম আরো বাড়তে পারে—এই আশঙ্কায় অনেক ক্রেতা একসঙ্গে প্রয়োজনের অতিরিক্ত পেঁয়াজ কিনছেন। রাজধানীর পাশাপাশি সারা দেশেও পেঁয়াজের বাজার অস্থির। পেঁয়াজসংকটের আতঙ্কে চট্টগ্রামে ভোগ্যপণ্যের পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে হামলে পড়েছে খুচরা বিক্রেতার দল। ঈশ্বরদীতে এক ধাক্কায় পেঁয়াজের দাম সেঞ্চুরি হেঁকেছে। কুমিল্লায়ও পেঁয়াজের বাজার অস্থির।

দেশে পেঁয়াজের চাহিদার সঙ্গে উত্পাদনের ব্যবধান কতঃ 

রপ্তানি বন্ধের এক দিনের ব্যবধানে এক লাফে পেঁয়াজের দাম দ্বিগুণ হওয়ায় যে প্রশ্ন এখন সামনে চলে এসেছে তা হলো—দেশে পেঁয়াজের চাহিদা কত? আর এই চাহিদার বিপরীতে উত্পাদন কত?

তবে এই হিসাবের সঙ্গে একমত নয় বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)। পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, গত পাঁচ বছরে পেঁয়াজের উত্পাদন ১৭ থেকে ১৮ লাখ মেট্রিক টনে স্থিতিশীল রয়েছে। প্রসেসিংসহ বিভিন্ন কারণে এর ২৫ শতাংশ পেঁয়াজ নষ্ট হলে দাঁড়ায় সাড়ে ১৩ লাখ টন। তাহলে দেখা যাচ্ছে, উত্পাদনের হিসাবেই বড় ধরনের গরমিল রয়েছে।

পেঁয়াজের বাজার স্থিতিশীল রাখতে সরকারের উদ্যোগঃ

ভারত রপ্তানি বন্ধ করায় দেশে পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা দূর করতে বিভিন্ন দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানির উদ্যোগ নিয়েছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ইতিমধ্যে মিয়ানমার ও তুরস্ক থেকে ১ লাখ টন পেঁয়াজ আমদানি চূড়ান্ত করা হয়েছে। এছাড়া সরকারের বিপণন সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি) বিপুল পরিমাণ পেঁয়াজ আমদানির উদ্যোগ নিয়েছে। এদিকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, পেঁয়াজ আমদানিতে আমদানি শুল্ক ৫ শতাংশ কমাতে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এনবিআরকে যে চিঠি পাঠিয়েছিল, তার জবাবে এনবিআর সেটা সম্ভব নয় বলে গত সোমবার এক চিঠিতে তা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে জানিয়েছে।

তবে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘পেঁয়াজের বাজার স্থিতিশীল রাখতে এবার সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রতিবেদনটি তৈরিতে সহায়তা করেছেন চট্টগ্রাম অফিস, কুমিল্লা প্রতিনিধি, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি, হাকিমপুর (দিনাজপুর) সংবাদদাতা, ঈশ্বরদী (পাবনা) সংবাদদাতা, বেনাপোল (যশোর) সংবাদদাতা, দামুরহুদা (চুয়াডাঙ্গা) সংবাদদাতা ও কালীগঞ্জ ( গাজীপুর) সংবাদদাতা।

দিল্লির পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের আহ্বান ঢাকারঃ 

হঠাত্ করে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের যে সিদ্ধান্ত ভারত সরকার গ্রহণ করেছে, তা প্রত্যাহারের জন্য দিল্লির প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ঢাকা। গতকাল মঙ্গলবার পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম কয়েকটি বেসরকারি টেলিভিশনকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে এ কথা জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধের আগে বাংলাদেশকে জানানোর কথা থাকলেও ভারত জানায়নি। তবে আবারও রপ্তানির বিষয়ে দিল্লির সঙ্গে আনুষ্ঠানিক আলোচনা শুরু হয়েছে।

Share This Post

Post Comment

%d bloggers like this: